শনিবার   ১৬ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ১ ১৪২৬   ১৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

গো বিডি ২৪

জেনে নিন ব্রণ থেকে চিরতরে মুক্তির উপায়

নিউজ ডেস্ক:

প্রকাশিত: ২৫ মে ২০১৯  

মানবদেহের ত্বকের গঠন বেশ বিস্ময়কর ও জটিল, যা সমস্ত শরীরকে ঢেকে রাখে। ত্বক মূলত তিনটি কাজ করে থাকে। যেমন দেহের অভ্যন্তরীণ গঠনকে রক্ষা করে। শরীরের তাপ নিয়ন্ত্রণ করে এবং কোষের অব্যবহৃত জিনিস বর্জন করে।


 ব্রণ একটি সাধারণ অথচ দীর্ঘমেয়াদি ত্বকের সমস্যা। এটি বয়ঃসন্ধিক্ষণ এবং যৌবনের একটি অবাঞ্ছিত সমস্যা। এটিকে যত্নের সঙ্গে সারিয়ে না তুললে শেষ পর্যন্ত যন্ত্রণাদায়ক অবস্থায় এসে দাঁড়ায়। সাধারণত ১১ থেকে ৩০ বছর পর্যন্ত ব্রণ বেশি হতে দেখা যায়, তবে প্রাপ্ত বয়স্কদেরও ব্রণ হতে পারে।

ব্রণ দেখতে ছোট ছোট ফুসকুড়ি লালচে ছোট গোটা, পুঁজপূর্ণ বড় চাকার মতো হতে পারে। সাধারণত মুখে যেমন গাল, নাক, থুতনি ও কাপালে ব্রণ হয়। তবে শরীরের উপরের অংশে (ঘাড়, কাঁধে, বুকে) ও হাতের উপরের অংশেও হরহামেশাই ব্রণ হতে দেখা যায়।

ব্রণ কেন হয়

* বয়ঃসন্ধির সময় হরমোন ক্ষরণ মাত্রার ভারসাম্যের অভাবে ত্বকের তেলগ্রন্থি থেকে তেল ক্ষরণের মাত্রা বেড়ে যায়। এতে লোমকূপ বন্ধ হয়ে প্রোপাইনো ব্যাকটেরিয়াম অ্যাকনে নামক ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ হয় এবং ব্রণের সৃষ্টি হয়।

* গরমে বেশি ঘামলে সেবেশাস ও তেলগ্রন্থির নালি বন্ধ হয়ে ব্রণ হতে পারে।

* নানারকম কসমেটিস ব্যবহার থেকেও ব্রণ হয়।

* মানসিক চাপ ও পর্যাপ্ত ঘুম না হলে, রাত জাগলেও, কোষ্ঠকাঠিন্যে ব্রণ হওয়ার প্রবণতা বেড়ে যায়।

* পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার অভাব ও মহিলাদের মাসিক ঋতুস্রাবের সঙ্গেও ব্রণ হওয়ার সম্পর্ক রয়েছে।

* গর্ভাবস্থায় হরমোনের মাত্রার পরিবর্তনের কারণেও ব্রণ হতে পারে।

* ঘন ময়েশ্চারাইজিং লোশন বা কড়া মেকআপ করলে।

* জন্মনিয়ন্ত্রণ বড়ি, স্টেরয়েড, খিঁচুনি বা মানসিক রোগের ওষুধ খাওয়া থেকেও ব্রণ হতে পারে।

ব্রণ হলে করণীয়

*চিকিৎসকের পরামর্শে সাবান বা ফেসওয়াশ দিয়ে মুখ ধোয়া।

* ব্রণে হাত বা নখ না লাগানো।

* তেল ছাড়া বা ওয়াটার বেসড মেকআপ ব্যবহার করা।

*মাথা খুশকিমুক্ত রাখার চেষ্টা করা।

* মানসিক চাপ পরিহার করা ও রাতে ঠিকমতো ঘুমানোর চেষ্টা করা।

* প্রচুর পানি, ফল ও সবজি খাওয়া।

কেন ব্রণের চিকিৎসা

চিকিৎসা না করালে অনেক সময় ব্রণ ত্বকের মারাত্মক ক্ষতি করতে পারে। ত্বকে গভীর প্রদাহ সৃষ্টি করতে পারে। ব্রণের ফলে চেহারা খারাপ দেখানোর কারণে হীনমন্য ও অন্যান্য সমস্যা হতে পারে। তাই শুরুতেই চাই সঠিক চিকিৎসা। প্রয়োজনে চিকিৎসার জন্য ডার্মাটোলজিস্টদের পরামর্শ নেয়া।

সূত্র: ঢাকা টাইমস

Loading...
এই বিভাগের আরো খবর